লকডাউনের মধ্যেও যেসব শর্ত মেনে কাজ করতে হবে মালয়েশিয়া প্রবাসীদের

লকডাউনের মধ্যেও যেসব শর্ত মেনে কাজ করতে হবে মালয়েশিয়া প্রবাসীদের

মালয়েশিয়া প্রবাসীরা সাবধান !
তুরস্কে তুষারধস
মালয়েশিয়ার কাছে অনন্য আর অসাধারণ বাংলাদেশের স্বীকৃতি

মালয়েশিয়ায় করো’নাভাই’রাসের প্রা’দুর্ভাব বেড়েই চলেছে। আর এ প্রা’দুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় নতুন করে আবার দেশটিতে শর্ত সাপেক্ষ মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার আরএমসিও ঘোষণা করেছে সরকার।

এই আরএমসিওতে নতুন করে আওতাভুক্ত হচ্ছে রাজধানী কুয়ালামাপুর, পুত্রাজায়া, সেলাঙ্গর ও সাবাহ রাজ্য। এতদিন শুধু দেশটির সাবাহ, পোর্ট ক্লাং ও কেদাহ রাজ্য মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার এমসিও লকডাউন করা হয়েছিল। আগামী বুধবার ১৪ অক্টোবর থেকে ২ সপ্তাহের জন্য এই আরএমসিও লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

সোমবার দেশটির সিনিয়র মন্ত্রী দাতু সেরী ইসমাইল সাবরি ইয়াকুব এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন। তিনি বলেন,

সেলাঙ্গরসহ আশপাশে সম্প্রতি আশ’ঙ্কাজনকভাবে কোভিড-১৯ ভাই’রাস পরিস্থিতি বৃদ্ধি পাওয়ায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক সুপারিশ জমা হওয়ার পর এই লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

এই লকডাউনে মালয়েশিয়ার সকল ধ’র্মীয়, ক্রীড়া, শিক্ষা এবং সামাজিক কার্যক্রম নি’ষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে কলকারখানা স্বাভাবিকভাবে চলবে।

এক জে’লা থেকে অন্য জে’লা বা প্রদেশে যাওয়া যাবে না। তবে সাধারণ শ্রমিকরা তাদের মালিকের কাছ থেকে অনুমতি পত্র নিয়ে যে কোন জে’লায় যেতে পারবেন।

প্রতিটি পরিবার থেকে ২ জন বাহিরে গিয়ে মুদির দোকান থেকে মালামাল কিনতে পারবেন। রেস্টুরেন্ট অন্যান্য ব্যবসায়ীক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে কি না সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছুই বলা হয়নি।

সপ্তাহখানেক আগে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক বলেছিলেন পুরো মালয়েশিয়া লকডাউন করার পরিকল্পনা নেই।

সাম্প্রতিক সময়ে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শর্তসাপেক্ষে মুভমেন্ট কন্ট্রোল ওয়ার্ডার জারি করা হয়েছে বলে জানালেন সংশ্লিষ্টরা।

COMMENTS

[gs-fb-comments]