নরসিংদীতে সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী তানিয়ার ঝু’ল’ন্ত লা’শ উদ্ধার

পুলিশের সেবায় শতকরা ৯৫ জনের বেশি সন্তুষ্ট : ডিএমপি কমিশনার
কো’রান-হাদিসের জ্ঞান থেকে আ’মার মনে হয়েছে মি’ডিয়াতে আমা’র কাজ করা ঠিক নাঃ সুজানা
এসআই আকবর বিদেশে পালালেও ফেরানোর ব্যবস্থা করা হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

নরসিংদীর পলাশ উপজেলায় তানিয়া আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধূর ঝুল’ন্ত লা’শ উ’দ্ধা’র করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার পাইকসা গ্রামের স্বামীর বাড়ি থেকে গলায় ওড়’না প্যা’চানো অবস্থায় ঝুলন্ত

লা’শ উ”দ্ধার করে পলাশ থানা পুলিশ। নি’হ’ত গৃহবধূ তানিয়া আক্তার পাইকসা গ্রামের সৌদী প্রবাসী মো: আব্দুল্লার স্ত্রী।

নি’হ’তের পরিবারের অভি’যোগ, মঙ্গলবার রাতে স্বামীর বাড়ির লোকজন তানিয়াকে যৌ’তু’কের জন্য নি-র্যাত-নের পর পরিকল্পিতভাবে হ-ত্যা করে। পরে লোক জানাজানির ভয়ে বিষয়টি আ-ত্মহ-ত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার জন্য লা’শ ঘরের ভিতর ঝুঁ’লিয়ে রাখে।

জানা যায়, গত দুই বছর আগে পাইকসা গ্রামের কফিল উদ্দিনের ছেলে প্রবাসী আব্দুল্লার সাথে পাশের চরপলাশ গ্রামের আশাদ মিয়ার মেয়ে তানিয়া আক্তার পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আব’দ্ধ হয়। বিয়ের তিন মাস পর স্বামী কর্মস্থলে চলে গেলে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দ্বারা নি-র্যাত-নের শি’কার হয় গৃহবধূ তানিয়া আক্তার।

নি’হ’তের বাবা আশাদ মিয়া অ’ভিযো’গ করেন, বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন যৌ’তু’কের টাকার জন্য প্রায়

সময় তানিয়াকে শারীরিকভাবে নি-র্যা-তন করতো। ঘটনার রাতে কোনো একসময় তার শ্বশুর, শাশুড়ি ও দুই দেবর মিলে নি-র্যা-তন করে তানিয়াকে হ-ত্যা করে। পরে বিষয়টি আ-ত্মহ-ত্যা বলে চালিয়ে দেয়া জন্য লা-শ ঝুলিয়ে রাখে।

এদিকে, এ বিষয়ে তানিয়ার শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সাথে কথা বলতে চাইলে তারা কোনো কথা বলেনি। পলাশ থানার

ওসি শেখ মো: নাসির উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উ-দ্ধার করে ময়নাতদ-ন্তের জন্য ম-র্গে পাঠানো হয়েছে। তদ’ন্ত রিপোর্টের পর হ-ত্যা না আ-ত্মহ-ত্যা বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।নরসিংদীর পলাশ উপজেলায় তানিয়া আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধূর ঝুল’ন্ত লা’শ উ’দ্ধা’র করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার পাইকসা গ্রামের স্বামীর বাড়ি থেকে গলায় ওড়’না প্যা’চানো অবস্থায় ঝুলন্ত

লা’শ উ”দ্ধার করে পলাশ থানা পুলিশ। নি’হ’ত গৃহবধূ তানিয়া আক্তার পাইকসা গ্রামের সৌদী প্রবাসী মো: আব্দুল্লার স্ত্রী।

নি’হ’তের পরিবারের অভি’যোগ, মঙ্গলবার রাতে স্বামীর বাড়ির লোকজন তানিয়াকে যৌ’তু’কের জন্য নি-র্যাত-নের পর পরিকল্পিতভাবে হ-ত্যা করে। পরে লোক জানাজানির ভয়ে বিষয়টি আ-ত্মহ-ত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার জন্য লা’শ ঘরের ভিতর ঝুঁ’লিয়ে রাখে।

জানা যায়, গত দুই বছর আগে পাইকসা গ্রামের কফিল উদ্দিনের ছেলে প্রবাসী আব্দুল্লার সাথে পাশের চরপলাশ গ্রামের আশাদ মিয়ার মেয়ে তানিয়া আক্তার পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আব’দ্ধ হয়। বিয়ের তিন মাস পর স্বামী কর্মস্থলে চলে গেলে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দ্বারা নি-র্যাত-নের শি’কার হয় গৃহবধূ তানিয়া আক্তার।

নি’হ’তের বাবা আশাদ মিয়া অ’ভিযো’গ করেন, বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন যৌ’তু’কের টাকার জন্য প্রায়

সময় তানিয়াকে শারীরিকভাবে নি-র্যা-তন করতো। ঘটনার রাতে কোনো একসময় তার শ্বশুর, শাশুড়ি ও দুই দেবর মিলে নি-র্যা-তন করে তানিয়াকে হ-ত্যা করে। পরে বিষয়টি আ-ত্মহ-ত্যা বলে চালিয়ে দেয়া জন্য লা-শ ঝুলিয়ে রাখে।

এদিকে, এ বিষয়ে তানিয়ার শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সাথে কথা বলতে চাইলে তারা কোনো কথা বলেনি। পলাশ থানার

ওসি শেখ মো: নাসির উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উ-দ্ধার করে ময়নাতদ-ন্তের জন্য ম-র্গে পাঠানো হয়েছে। তদ’ন্ত রিপোর্টের পর হ-ত্যা না আ-ত্মহ-ত্যা বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

COMMENTS

[gs-fb-comments]