টাঙ্গাইলে তিন দিনব্যাপী দুই বাংলার কবিতা উৎসব শুরু

টাঙ্গাইলে তিন দিনব্যাপী দুই বাংলার কবিতা উৎসব শুরু

ঢাকা উত্তরে কাউন্সিলর পদে জিতলেন যারা
গুলি করে মারার হুমকি দিয়ে বন্ধু সুমনকে বিয়ে করেন পাপিয়া!
হঠাৎ করেই জেঁকে বসেছে শীত

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীকে সামনে রেখে টাঙ্গাইলে সাধারণ গ্রন্থাগারের আয়োজনে তিন দিনব্যাপী ৫ম বাংলা কবিতা উৎসব শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এই উৎসবে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের চার শতাধিক কবি যোগ দিয়েছেন। এ ছাড়াও উৎসবে ভারতের ৬০ জন কবি অংশ নিয়েছেন।

সকালে স্থানীয় শহীদ স্মৃতি পৌরউদ্যানে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তপক অর্পণের মধ্য দিয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুর রহমান খান ফারুক।

জেলা প্রশাসক ও সাধারণ গ্রন্থাগারের সভাপতি শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী পর্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, ভারতের কবি অমৃত মাইতি, মৃণাল বসু চৌধুরী, কমল চক্রবর্তী, সুখমার বাগচি, শ্যামল ক্রান্তি দাস, শংকট চক্রবর্তী, বাংলাদেশের কবি আল মুজাহিদী, আলী ইমাম, বুলবুল খান মাহবুব, জাহিদুল হক, মাহবুব সাদিক ও মাকিদ হায়দার প্রমুখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে মধ্যাহ্ন বিরতির পর বিকেলের দ্বিতীয় অধিবেশনে চলবে দু’পর্বে কবিতা পাঠ। সন্ধ্যায় কবি সাহিত্যিকদের নিয়ে আলোচনা শেষে চতুর্থ অধিবেশনে অরণ্য সাহিত্য পুরস্কার প্রদান করা হবে। ভারতের কবি প্রভাত কুমার মুখোপাধ্যায় ও পার্থসারথি গায়েন এবং বাংলাদেশের কবি জাহিদ হায়দার ও মুজিবুল হক কবীর।

ভারতের কবি অমৃত মাইতি বলেন, ‘এর আগে চারবার টাঙ্গাইলে অনুষ্ঠিত বাংলা কবিতা উৎসবে যোগ দিয়েছি। বাংলাদেশের মানুষ বাংলা ভাষার জন্য বুকের রক্ত দিয়েছেন। রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছেন। তাই বাংলাদেশ প্রতিটি বাঙালির তীর্থক্ষেত্র।’

টাঙ্গাইল সাধারণ গ্রন্থাগারের সাধারণ সম্পাদক কবি মাহমুদ কামাল বলেন, ‘আজ সকাল থেকে এ উৎসব শুরু হয়েছে। কবিধাম হিসেবে পরিচিত টাঙ্গাইলে বাংলাদেশ ও ভারতের কবিদের অংশ গ্রহণে এ উৎসব কবিদের মিলনমেলায় পরিণত হবে।’

COMMENTS

[gs-fb-comments]