আজ মধ্যরাত থেকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা লকডাউন

আজ মধ্যরাত থেকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা লকডাউন

নোয়াখালীতে আরও ৭৭ জনের করোনা শনাক্ত
ভয়াবহ আগুনে পুড়ল বনানীর টিঅ্যান্ডটি বস্তি
সাদা পাথর ও চায়ের দেশে

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হিসেবে রেড জোনে পড়া রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২টার পর থেকে লকডাউন করা হবে। সিটি কপোরেশন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসন, স্থানীয় থানাসহ সমন্বিতভাবে এই লকডাউন কার্যকর করা হবে।

ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুকতারুজ্জামান গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ইতিমধ্যে ওই এলাকায় মাইকিং করে লকডাউনের কথা জানানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এলাকায় মাইকিং করা হয়। মাইকে বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে এলাকায় লকডাউন কার্যকর হবে জানিয়ে এলাকার বাসিন্দাদের নিত্য-প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সংগ্রহে রাখার কথা বলা হয়।

তারা আরও জানান, বুধবার সন্ধ্যার পর থেকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার প্রবেশ গেটে পুলিশ মোতায়েন দেখা গেছে। এছাড়া বসুন্ধরার প্রগতি সরণি গেট দিয়ে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এই এলাকার পূর্বাচল সড়কের গেটটি শুধু খোলা রয়েছে।

এর আগে জোনভিত্তিক লকডাউনের অংশ হিসেবে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজার এলাকা লকডাউন করা হয়। পর্যায়ক্রমে রাজধানীর ৪৫টি এলাকা লকডাউনের কথা রয়েছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশকে রেড, ইয়োলো ও গ্রিন জোনে ভাগ করছে সরকার। আর কোন এলাকা কোন রংয়ে থাকবে তার জন্য বিভিন্ন নীতিমালাও করা হয়েছে। এরইমধ্যে জোনভিত্তিক লকডাউনের অংশ হিসেবে কয়েকটি এলাকা লকডাউন করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বেশি আক্রান্ত এলাকাকে রেড, অপেক্ষাকৃত কম আক্রান্ত এলাকাকে ইয়েলো ও একেবারে কম আক্রান্ত বা মুক্ত এলাকাকে গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হবে। রেড জোনকে লকডাউন করা হবে, ইয়েলো জোনে যেন আর সংক্রমণ না বাড়ে সেই পদক্ষেপ নেয়া হবে। সতর্কতা থাকবে গ্রিন জোনেও।

গত ১৪ জুন জোনভিত্তিক লকডাউনে কিভাবে কাজ চলবে সেজন্য একটি গাইডলাইন প্রকাশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গাইডলাইনে রেড জোন ঘোষণা করার পর সে এলাকায় কাজ কীভাবে চলবে তাও সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে।

COMMENTS

[gs-fb-comments]