মিথিলার স্বামীর ৬ প্রেমিকা

মিথিলার স্বামীর ৬ প্রেমিকা

মা হারালেন অপু বিশ্বাস
পুজোয় হবু বর অঙ্কুশের জন্য কী কিনলে ঐন্দ্রিলা সেন?
যে কারণে অজয়, যুগকে দেখে মন খারাপ কাজল-নাইশার

সৃজিত মুখার্জি। কলকাতার প্রতিভাবান একজন পরিচালক হিসেবেই সুনাম তার। তবে নির্মাতার বাইরেও টালিউড পাড়ায় তার আরো একটা পরিচয় রয়েছে। ইন্ডাস্ট্রির মানুষ তাকে ‘প্রেমিক’ হিসেবেই চিনেন।

ক্যারিয়ারের শুরু থেকে সৃজিতের একাধিক প্রেমের খবর প্রকাশ হয়েছে গণমাধ্যমে। ৪২ বছর বয়সি সৃজিত বিয়েও করেছিলেন। কিন্তু সে সংসার বেশিদিন টেকেনি। অনেক ঘাট ঘুরে সৃজিতের প্রেমের তরী অবশেষে ভিড়েছে তীরে।

সর্বশেষ বাংলাদেশের অভিনেত্রী মিথিলার সঙ্গে প্রেমে জড়ান সৃজিত। গেল ৬ ডিসেম্বর বিয়ে করেন তারা। মিথিলাকে বিয়ের আগে বেশ কয়েকজন নারীর নামের সঙ্গে জড়িয়েছে সৃজিতের নাম।

২০১৩ সালে ‘মিসর রহস্য’ ও ২০১৪ সালে ‘জাতিস্মর’ সিনেমা নির্মাণ করেন সৃজিত। টলিউড অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখার্জি অভিনয় করেন ওই ছবিতে। এই সিনেমা করতে গিয়েই স্বস্তিকার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হন সৃজিত। তার আগে তখন পরমব্রত

চ্যাটার্জির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের বিচ্ছেদ হয় অভিনেত্রীর। এমন বিরহের দিনে প্রেমের পেয়ালা হাতে স্বস্তিকার পানে এগিয়ে যান সৃজিত মুখার্জি। তবে স্বস্তিকায় ‘স্বস্তি’ মেলেনি সৃজিতের। বাধ্য হয়ে দু’জন দুই পথ ধরেন।

বাংলাদেশের শোবিজের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। হুট করেই কলকাতায় ছবিতে অভিনয় শুরু করেন। ২০১৫ সালে কলকাতার ‘রাজকাহিনি’ ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। এ ছবির নির্মাতা সৃজিত। ছবিটি করতে গিয়েই জয়ার সঙ্গে সৃজিতের প্রেমের গুঞ্জন ওঠে। তবে বিষয়টি নিয়ে প্রথমে নীরব থাকলেও পরে গুঞ্জন নাকচ করে দেন জয়া।

‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’ ভারতের সংগীতশিল্পী মধুবন্তী বাগচীর সঙ্গে সৃজিতের প্রেমের খবর প্রকাশ করে। তাদের প্রেম নিয়ে মিডিয়া বেশ কিছুদিন সরব থাকলেও হুট করে নীরব হয়ে যায়। মধুবন্তী বাগচীও পরে বিষয়টি অস্বীকার করেন। সায়ন্তনীর সঙ্গেও প্রেম টেকেনি।

সৃজিত মুখার্জি পরিচালিত ‘এক যে ছিল রাজা’ সিনেমায় অভিনয় করেন অভিনেত্রী সায়ন্তনী গুহ ঠাকুর। চলতি বছরের মাঝামাঝি শোনা যায়, এই পরিচালকের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়েছেন সায়ন্তনী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা এই জুটির একটি ছবিকে কেন্দ্র করে আলোচনা জমে ওঠে। যদিও সর্বশেষ তা গুঞ্জন পর্যন্তই সীমাবদ্ধ রয়ে গেছে।

পায়েলের প্রেমে মজেছিলেন ‘প্রেম কুমার’ সৃজিত। টালিউড অভিনেত্রী পায়েল সরকারের সঙ্গেও প্রেম ছিলো তার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পায়েলেও থাকেনি। একটা পর্যায়ে সম্পর্কের বিচ্ছেদ হয় তাদের মধ্যে।

কলকাতার অভিনেত্রী ও মডেল রিতাভারি। সৃজিতের সঙ্গে রিতাভরির প্রেম টালিউড পাড়ায় বেশ আলোচনায় ছিল। তাদের অনেক ঘনিষ্ঠতার খবরও কলকাতার গণমাধ্যমে উঠে আসে। তবে সম্পর্কে পরিণয় আসেনি। হুট করেই দু’জনের সম্পর্কে ভাঙন ধরে।

COMMENTS

[gs-fb-comments]