৩ হাজার টাকায় মাস কাটত অভিনেত্রী মিমির

৩ হাজার টাকায় মাস কাটত অভিনেত্রী মিমির

মালদ্বীপে উঞ্চতা ছড়াচ্ছেন হিনা খান
নেহা কক্করের তুলনায় রোহনপ্রীত সিং কত বছরের ছোট জানেন!
একাধিক সম্পর্ক, ডার্ক ছবিতে বলিউড যাত্রা হয়েছিল হুমার

বর্তমান সময়ে এখনো এমন অনেক মা-বাবা রয়েছেন যারা চান না তাদের সন্তান অভিনয়শিল্পী হোক। অন্যদিকে সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের জন্য বিষয়টা ছিল আরো কঠিন। ছেলে-মেয়েরা অভিনয় পেশায় যাবে, তা মা-বাবার জন্য একদম

কল্পনার বাইরে ছিল। তবুও অনেক ভারতীয় অভিনেতা-অভিনেত্রী শত প্রতিকূলতা পাড়ি দিয়ে মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে এসে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। যার অন্যতম উদাহরণ কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও সাংসদ মিমি চক্রবর্তী।

মিমির উঠে আসা জলপাইগুড়ি জেলার একটি মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে। সম্প্রতি অভিনেত্রী হিসেবে নিজের উঠে আসার কথা ‘হইচই’ টিভিকে জানান তিনি।

মিমি বলেন, ‘১১ বছর হয়ে গেছে ইন্ডাস্ট্রিতে। স্বপ্ন ছিল অভিনেত্রী হব। একা লড়াই করেছিলাম এই জায়গাটায় আসার জন্য। প্রথমে মিথ্যা কথা বলে এসেছি, বলেছিলাম পড়াশোনা করতে যাচ্ছি কলকাতায়। ৩ হাজার টাকা বাড়ি থেকে

পাঠাতো। সেটা দিয়ে পিজির ভাড়া দেব কী? খাব কী? নতুন জামা কিনব কী? অডিশনে কী করে যাব! হতো না। এক বছর সময় নিয়ে ধীরে ধীরে সবকিছু গোছালাম। প্রথমে মডেলিংয়ে সুযোগ পাই, তারপর সিরিয়াল, তারপর ফিল্ম।’

সম্প্রতি, ‘ড্রাকুলা স্যার’ ছবিতে ভিন্ন ঘরানার চরিত্র ‌‘মঞ্জরী’-তে অভিনয় করে ব্যাপক প্রশংসিত হন মিমি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি এখন এমন শক্তিশালী চরিত্রই বেছে নেয়ার চেষ্টা করি। আমার এতদিনের সমস্ত চরিত্রগুলোর থেকে মঞ্জরী একটা লার্জার দ্যান লাইফ চরিত্র। সে হয়ত যুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে অংশ নিতে পারেনি। যুদ্ধটা চালিয়ে গেছে। আদর্শের জন্য, ভালোবাসার জন্য।’

COMMENTS

[gs-fb-comments]