আমা’র এক ছবির বাজেট বাংলাদেশের ১শ’ ছবির বাজেটের সমান: অনন্ত

আমা’র এক ছবির বাজেট বাংলাদেশের ১শ’ ছবির বাজেটের সমান: অনন্ত

সালমানের খানের ‘দাবাং ৩’ নায়িকার ন’গ্ন ছবি ফাঁস
সাড়ে ৭ লাখ সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদের জন্য ক্যাটরিনার উদ্যোগ
তুরস্কে উড়াল দিচ্ছেন অনন্ত জলিল

নতুন সিনেমা বানানোর ঘো’ষণা দিয়েছেন ব্যবসায়ী, সিনেমা প্রযোজক ও নায়ক অনন্ত জলিল। বরাবরের মতো জলিল সাহেবের সিনেমা’র ঘো’ষণাতেই চ’মক থাকে। তার সিনেমা’র বাজেট বেশি । তাই চ’মকের মাত্রাও একটু বেশি। তবে এবারের চ’মকটা একটু আ’লাদা। এবারের সিনেমায় মূখ্য চরিত্রে অনন্ত নিজে থাকছেন না। থাকছেন তার স্ত্রী’ বর্ষা।

আর বাংলাদেশি অংশের নি’র্মাণের দায়িত্বে থাকছেন তিনি নিজেই। অনন্ত জলিলের ছবিতে মূখ্য চরিত্রে অনন্ত থাকবেন না এটা যেনো অসম্ভব চিন্তা। অথচ এটাই এবার হচ্ছে। অসম্ভবকে সম্ভব করাই যে অনন্তের কাজ!

রোববার রাজধানীর পাঁচ তারকা হোটেলে হয়ে গেলো নতুন এই ছবিটি নিয়ে ‘মিট দ্য প্রেস’। এই এক মিট দ্য প্রেসে এক ঢিলে তিন পাখি শি’কার করলেন অনন্ত জলিল! মানে ‘দিন দ্য ডে’ ও নতুন ছবি ’নেত্রী দ্য লিডার’ ও হোটেলটির স’ঙ্গে চুক্তি সাক্ষর অনুষ্ঠান একসাথেই করে নিলেন। এতে করে অনন্ত জলিলের ব্যবাসায়ীক প্রজ্ঞার পরিচয় পাওয়া গেলো।

গত শুক্রবারে পা’ঠানো নিমন্ত্রণপত্রে অনুষ্ঠান শুরুর কথা জা’নানো হয় ৪টা। ঘন্টা খানেক দেরিতে গেলেও দেখা যায় সবে শুরু হয়েছে অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা। মানে অনুষ্ঠানও নির্দিষ্ট সময়ের প্রায় ৩০ মিনিট পরেই শুরু হয়

দেরি করে যাওয়ায় ১৫ মিনিট আগে অনন্ত জলিল কি বলছিলেন তা শুনা হয়নি। যাওয়া মাত্রই দেখা গেলো মাইক্রোফোন নিয়ে কথা বলছেন অনন্ত জলিল। বলছিলেন, ‘আম’রা দিন দ্য ডে’ নামের যে মুভিটি করেছি তা বাংলাদেশের এই প্রেক্ষাপটের নির্মিত একশ’টি সিনেমা’র বাজেটের সমান। যেহেতু আমি আর ই’রান যৌথভাবে ছবিটি নি’র্মাণ করেছি।

তাই আমি শুধু বাংলাদেশি অংশটুকু ইনভেস্ট করেছি। না হলে এতো টাকা আমি একা লগ্নী করলে মা’র্কেট থেকে টাকা তোলে না আনতে পারলে আমা’র কোম্পানি দেউলিয়া হয়ে যেতো।’

কথাগুলো বলার পর ছবিটিতে এতো টাকা ই’রান সরকার লগ্নী করায় তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ’খোঁ’জ দ্য সার্চ’ ছবির এ নায়ক। এ সময় অনন্ত জলিলের পাশে হাসি মুখে বসা ছিলেন তার স্ত্রী’ চিত্রনায়িকা বর্ষাও। ‘দিন দ্য ডে’ বাংলাদেশ ই’রান যৌথভাবে প্রযোজনা করলেও অনন্তর পরের ছবি ‘নেত্রী দ্য লিডার’ এ বাংলাদেশের সাথে যৌথ প্রযোজনা করবে তুর্কিস্তান। কথায় কথায় বিষয়টি জা’নিয়ে দিলেন অনন্ত।

এও জা’নালেন দুটি ছবিই বিশ্বের ৮০টি দেশে মু’ক্তি পাবে।বক্তব্যে অনন্ত জলিল আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমাদের দেশের আর্টিস্টদের তো কলকাতার দর্শকরাই চিনেন না। কারণ ভা’রতীয় টিভি চ্যানেল আমাদের দেশে সচল কিন্তু আমাদের চ্যানেলগুলো সে দেশে দেখা যায়না।

ফলে তারা আমাদের দে’খতেও পায়না এবং চিনেও না। এই বাংলাদেশের ছবি বিশ্বের ৮০টি দেশে প্রদর্শিত হবে। এটা অবশ্যই আমাদের জন্য বিশাল গর্বের।’বিগ বাজেটের ‘দিন দ্য ডে’ ঈদুল ফিতরে মু’ক্তি দেওয়ার ইচ্ছে অনন্ত জলিলের। কিন্তু তিনি যেহেতু এটার একক প্রযোজক নন তাই তার একার সিদ্ধা’ন্ত নেওয়া সম্ভবও নয়।

কারণ ই’রান ছবিটি তাদের দেশের সবচেয়ে বড় একটি উৎসবে প্রদ’র্শন করাতে চায়। তবে অনন্ত বাংলাদেশে ঈদুল ফিতরে মু’ক্তির প্রস্তাব দিয়েছে ই’রানের কাছেও। উভ’য় পক্ষ একমতে এলেই ঈদুল ফিতরে মু’ক্তি সম্ভব বলে জা’নালেন অনন্ত।

আর ‘নেত্রী দ্য লিডার’ ছবি বাংলাদেশ ভা’রত ও তুর্কিস্তানে শু’টিং করা হবে। ছবিটিতে তুর্কিস্তানের এক সুপারস্টারেরও অ’ভিনয়ের কথা রয়েছে।অনন্ত জলিল যখন এসব নিয়ে কথা বলছিলেন। বিদেশে যৌথ প্রযোজনায় বড় বড় বাজেটের ছবিতে লগ্নী করছেন তিনি।

ঠিক এই ধ’রনের ছবিতে শাকিব খানকে নিয়ে কাজ করার কোনে প’রিকল্পনা আছে কিনা তার? রাখা হয় এমন প্রশ্ন। এ প্রশ্নে ভড়কে যাননা অনন্ত। সহ’জ ভাষায় বলেন, এমন প্রজেক্টের জন্য অনেক প্রফেশনাল হতে হয়, গুড হিউমন হতে হয়। মোট কথা ব্যাক্তিগত প্রোফাইল থাকতে হয় সচ্ছ।

কারণ আমি যখন ই’রানের স’ঙ্গে কাজ ক’রতে যাই তখন ই’রানের মেয়র, সংস্কৃতিমন্ত্রীর স’ঙ্গে আমা’র মিটিং ক’রতে হয়েছে। তারা আমা’র উপর ত’দন্ত কমিটি গঠন করে বাংলাদেশে পাঠিয়েছে। আমি ব্য’ক্তিটা আ’সলে কেমন সেটা যাচাইয়ের জন্য। তারা ত’দন্তের পর আমাকে নিয়ে ১৪ পৃষ্টার একটা রিপোর্ট দেন।

যেখানে আমা’র সব ক’র্মকা’ণ্ডের কথা বলা ছিলো। বিদেশে কাজ ক’রতে হলে ভালো প্রোফাইলের প্রয়োজন আছে। শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রয়োজন রয়েছে। আপনি কলকাতায় ছবি ক’রতে গেলে হয়তো এসব প্রোফাইলের দরকার হবে না। কিন্তু বলিউড, ই’রান, তুর্কি এদের স’ঙ্গে যৌথ প্রযোজনা ছবি ক’রতে হলে আপনার প্রোফাইল দরকার আছে ।’

তবে অন্যদেশের স’ঙ্গে যৌথ প্রযোজনার ছবিতে শাকিব খানকে নিয়ে কাজ ক’রতে না চাইলেও দেশের বড় বাজেটের ছবিতে শাকিব খানকে নিয়ে কাজে’র ইচ্ছে প্র’কাশ করেন অনন্ত জলিল। তিনি বলেন, ’আমি আর শাকিব খান একস’ঙ্গে ছবি করলে

বাংলদেশের ৯০ ভাগ দর্শক খুশি হবে। তারা চান অনন্ত জলিল ও শাকিব খান একটা ছবি করুক। তাই যৌথ প্রযোজনার না হোক দেশের বড় কোন বাজেটের ছবি শাকিব খানের স’ঙ্গে কিভাবে করা যায় সেটা দেখবো। সবার আশাটা কিভাবে পূরণ করা যায় সে চেষ্টাটা করে দেখবো।’

COMMENTS

[gs-fb-comments]