কঙ্গনার বিরুদ্ধে উত্তাল মুম্বাই

কঙ্গনার বিরুদ্ধে উত্তাল মুম্বাই

সিনহা পরিবারে কি গৃহযুদ্ধ বাঁধল?
দেবরদের আপন হয়ে আসছেন মৌসুমী
প্রিয়াঙ্কাকে ধাক্কা মেরে সমুদ্রে ফেলে দিলেন নিক

মুম্বাইকে ‘পাকিস্তান অধিকৃত কাম্মীর’-এর সঙ্গে তুলনা করে বেশ গ্যাড়াকলেই পড়ে গেছেন বলিউডের আলোচিত, সমালোচিত ও বিতর্কিত অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। তার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে ভারতের অন্যতম এই শহরের মন্ত্রী, কয়েকজন বলিউড তারকা থেকে শুরু করে বহু সাধারণ মানুষ। শহরজুড়ে কঙ্গনার ছবিতে লাগানো হচ্ছে কালি, ছেঁড়া হচ্ছে তার ছবি পোস্টার।

এতো গেল সাধারণ মানুষদের প্রতিবাদের চিত্র। সংবাদ সংস্থা এএনআইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ‘কঙ্গনার মুম্বাইয়ে থাকার কোনো অধিকারই নেই।মুম্বাই পুলিশকে যেখানে স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের সঙ্গে তুলনা করা হয়, ও সেখানে মুম্বাই পুলিশকে অপমান করে কথা বলেছে। ও বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

গেল বৃহস্পতিবার এই নায়িকা টুইটারে লেখেন, ‘শিবসেনা নেতা আমাকে মুম্বাই না আসার হুমকি দিয়েছেন। কেন, মুম্বাই কি পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীর?’ সুশান্তের মৃত্যু-কাণ্ডে মুম্বাই পুলিশের ভূমিকাকেও প্রশ্নবিদ্ধ করেন নায়িকা। বলেন, ‘ক্রিমিনাল কেসে নিজেকেই শিকার হিসেবে প্রতিপন্ন করা তোমাদের পুরনো ধান্দা। লজ্জা হওয়া উচিত মুম্বাই পুলিশ।’

ব্যাস, এর পরেই ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর, দিয়া মির্জার মতো তারকারা যেমন কঙ্গনার বিপরীতে যান, ঠিক তেমনই নেটিজেনদের একাংশও মুম্বাইকে পাকিস্তানের সঙ্গে তুলনা করায় ক্ষীপ্ত হয়ে ওঠেন। শিসেনার মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত নায়িকাকে মুম্বাইয়ে না ফেরার হুমকি দেন। তিনি বলেন, ‘যে শহরে এসে কঙ্গনা যশ, নাম, টাকা সবকিছু পেয়েছে, সে শহর সম্পর্কে বাজে মন্তব্য কীভাবে করতে পারে।’

যদিও থেমে থাকেননি কঙ্গনাও। তিনি টুইটারে পাল্টা লেখেন, ‘পা-চাটার দলদের হঠাৎ করেই মহারাষ্ট্রের উপর ভালোবাসা উথলে উঠছে। মহারাষ্ট্র কারও বাবার নয়। আগামী সপ্তাহের ৯ সেপ্টেম্বর আমি মুম্বাইতে ফিরব। আমি যখন বিমানবন্দরে নামব তখন টুইট করে তা সবাইকে জানিয়ে দেব। কারও বাবার ক্ষমতা থাকলে আমাকে যেন আটকায়।’

COMMENTS

[gs-fb-comments]