সারা-সুশান্তের প্রেমের অজানা তথ্য ফাঁস

সারা-সুশান্তের প্রেমের অজানা তথ্য ফাঁস

মা’দক মা’মলা : এনসিবির জি’জ্ঞাসাবাদের জন্য হাজির দীপিকা
সুশান্তের সঙ্গে স্বামী-স্ত্রীর মতো থাকতাম: রিয়া
পরকীয়ার জেরে স্ত্রীর আ’ত্মহ’ত্যা, ‘বাহুবলি’ অভিনেতার গ্রে’প্তার

বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে তার সঙ্গে অভিনেত্রী সারা আলি খানের প্রেমের গুঞ্জন। গত বছরের শেষ দিকে ‘কেদারনাথ’ ছবির সেট থেকে নাকি তাদের প্রেম শুরু হয়েছিল বলে গুঞ্জন রয়েছে। কোনো এক অজানা শক্তির হুমকিতে সে প্রেমের সলীল সমাধিও হয়েছে বলে কানাঘুষা রয়েছে। যদিও সারা এ প্রেমের কথা স্বীকার করেননি। অন্যদিকে সুশান্ত তো চুপ হয়ে গেছেন চিরকালের জন্য। তিনি আর কোনো দিন কিছু বলবেন না।

তবে চাপা থাকে কি কিছু? সারা-সুশান্তের প্রেম নিয়ে আবারও বলিউড সরগরম। দুই তারকার প্রেম নিয়ে এবার চাঞ্চল্যকর খবর প্রকাশ্যে আনলেন সুশান্তের ফার্মহাউজের রইস নামে এক নিরাপত্তাকর্মী। তিনি জানান, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে সুশান্তের লোনেভলার ফার্মহাউজে কাজে ঢোকেন তিনি। সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে রইস জানান, সুশান্তের মৃত্যুর পরেও জুলাই পর্যন্ত তিনি ওই ফার্মহাউজের দেখভাল করেছেন।

অভিনেতার এই কর্মী জানান, ২০১৮ সালের শেষের দিকে সুশান্তের সঙ্গে তার ফার্মহাউজে যাতায়াত শুরু করেন সারা। যখনই আসতেন তিন-চারদিন কাটিয়ে তারপর ফিরে যেতেন। সারা-সুশান্তের বহুল চর্চিত থাইল্যান্ড ট্রিপ থেকে ফিরে এসে বিমানবন্দর থেকে সরাসরি ওই ফার্মহাউজে ঢোকেন তারা। সঙ্গে ছিলেন আরও এক ব্যক্তি। তিনি সুশান্তের বন্ধু স্যামুয়েল। এর আগে সুশান্তের আর এক বন্ধু সাবির জানিয়েছিলেন, সারাকে এয়ারপোর্ট থেকে স্যামুয়েলই আনতে গিয়েছিলেন।

রইসের কথায়, ‘সারা ম্যামের ব্যবহার খুবই ভালো ছিল। যিনি রান্না করতেন তাকে তিনি ডাকতেন ‘মাউসিজি’ বলে। আমাকে বলতেন রইস ভাই। সুশান্ত স্যারের সব কর্মচারীকে সারা ম্যাম অত্যন্ত শ্রদ্ধা করতেন। কিন্তু কী এমন হল যে শেষ হয়ে গেল তাদের সম্পর্ক?

রইস বলেন, ‘মনে আছে, আব্বাস ভাই (সুশান্তের বন্ধু) আমাকে ব্যাগ গোছাতে বলেন ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে। ২১ জানুয়ারি সুশান্ত স্যারের জন্মদিন। ঠিক হয় আমরা সবাই দমন বেড়াতে যাব। কিন্তু দমনে কোনো হোটেল পাওয়া গেল না। প্ল্যানটাও ভেস্তে গেল।’

রইসের কথা থেকেই জানা যায়, ওই দমন ট্রিপে সুশান্তের সঙ্গী হতেন সারাও। এমনকি, ওই ট্রিপেই নাকি সারাকে প্রপোজ করার পরিকল্পনা ছিল সুশান্তের। সারার জন্য নাকি দামি উপহারও অর্ডার করেছিলেন সুশান্ত। দিতেন বিয়ের প্রস্তাব? রইস জানান, ‘বিয়ের কথা জানি না। তবে শুনেছিলাম, স্যার ম্যামকে প্রপোজ করবেন। স্যারের বন্ধুরা বলাবলি করছিলেন।’

রইস বলেন, ‘এরপর ঠিক হল আমরা সবাই কেরল যাব। কিন্তু তাও ভেস্তে যায়। স্যারের জন্মদিন চলে গেল। সারা ম্যাম জানুয়ারি মাসে বেশ কয়েক বার ফার্মহাউজে আসেন। কিন্তু ফেব্রুয়ারি আসতেই তাকে আর ফার্মহাউজে দেখতে পাইনি। ওই মাসের শেষ দিকে জানতে পারি, স্যারের সঙ্গে ম্যামের ব্রেকআপ হয়ে গেছে। তবে কী কারণে ব্রেকআপ হয়েছিল, তা সত্যিই জানি না।’

রইসের কথা থেকেই জানা যায়, এ বছরের মার্চেই সবশেষ প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে ওই ফার্মহাউজে ওঠার কথা ভাবছিলেন সুশান্ত। কিন্ত এর পরেই করোনা, লকডাউন। তাই সেটা আর হয়নি। রইস বলেন, ‘স্যারের আসার অপেক্ষায় ছিলাম। এলেন না। উনি তো শুধু আমাদের বস ছিলেন না। বন্ধুর মতো একসঙ্গে ক্রিকেট খেলতাম, গল্প করতাম। সেসব আর কিছুই হবে না।’

COMMENTS

[gs-fb-comments]