‘জো আমরা পেরেছি, তুমিই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট’, বাইডেনকে প্রথম ফোন কমলার

‘জো আমরা পেরেছি, তুমিই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট’, বাইডেনকে প্রথম ফোন কমলার

সীমান্তে সংঘর্ষ: ভারতের ১০০ চীনের ৩৫০
সৌদির আরবের তেল রফতানি কমে গেল ৬২ শতাংশ
নির্বাচনে জালিয়াতির প্রমাণ নেই : মার্কিন নির্বাচন কমিশন

কমলা হ্যারিস যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম নারী ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস গড়েছেন। তিনিই দেশটির প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ ও এশীয় নারী যিনি যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পদে অধিষ্ঠিত হতে যাচ্ছেন। এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে

ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রার্থী জো বাইডেন জয়ী হওয়ার পর তাকে প্রথম ফোন করে কমলা জানান, ‘জো আমরা পেরেছি, তুমিই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট।’

শনিবার (৭ নভেম্বর) ফলাফল ঘোষণার পর এক টুইটে ওই কথোপকথনের ভিডিও আপ করেন কমলা হ্যারিস। সেখানে তাকে খুব উচ্ছাসিত ভঙ্গিত বাইডেনের সাথে কথা বলতে দেখা যায়। তার টুইট করা এই ভিডিও রিটুইট করেন বাইডেন।

‘উই ডিড ইট, উই ডিড ইট জো। ইউ আর গোয়িং টু বি দ্যা নেক্সট প্রেসিডেন্ট অব দ্যা ইউনাইটেড স্টেটস’। নির্বাচনে জো বাইডেনের বিজয় নিশ্চিত হওয়ার পর ফোন কলে ঠিক এই কথাগুলো বলেই অভিনন্দন জানালেন কমলা হ্যারিস।

কৃষ্ণাঙ্গ বাবা আর ভারতীয় মায়ের সন্তান হ্যারিস ক্যালিফোর্নিয়ার সেনেটর ছিলেন। ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্য ডোমোক্র্যাটিক দল থেকে মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে জো বাইডেনের কাছে হেরে যান তিনি। পরে বাইডেন তাকে

রানিংমেট করেন। হ্যারিস যুক্ত হওয়ায় বাইডেনের নির্বাচনী প্রচারের গতি অনেক বেড়ে যায়। বিশেষ করে ভারতীয় আমেরিকানদের কাছে ডেমোক্র্যাটিক দলের জনপ্রিয়তা বাড়ে।

আমেরিকার ইতিহাসে এ পর্যন্ত মাত্র দু’জন নারী ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে লড়েছেন। ২০০৮ সালে রিপাবলিকান পার্টির হয়ে সারা পলিন, ১৯৮৪ সালে ডেমোক্রেটিক পার্টির জেরালডিন ফেরারো। তাদের কেউই নির্বাচিত হতে পারেননি। আবার

বাইডেন তার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ক্ষমতা ছেড়ে দিলে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট পাবে যুক্তরাষ্ট্র। তখন এটা আরও বড়
রেকর্ড।

কমলা যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও অর্থনীতি পড়ার পর হেস্টিং কলেজ থেকে আইনে ডিগ্রি নেন। ১৯৯০ সালে তিনি ওকল্যান্ডে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০০৩ সালে তিনি সান ফ্রান্সিসকোর অ্যাটর্নি জেনারেল নির্বাচিত হন; ২০১৪ সালে পুনঃনির্বাচিত হন। ২০১৬ সালের সিনেট নির্বাচনে লোরেটা সানচেজকে

পরাজিত করে বারবারা বক্সারের উত্তরসূরী হন। এর ফলে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার তৃতীয় নারী সিনেটর হওয়ার পাশাপাশি দ্বিতীয় আফ্রিকান-মার্কিন নারী এবং প্রথম দক্ষিণ-এশীয় বংশোদ্ভূত মার্কিনী হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভার উচ্চকক্ষ সিনেটে দায়িত্ব পালন করেন।

এদিকে, দেশটির বর্তমান এবং পরাজিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফলাফল মানুক আর নাই মানুক বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধান এবং বিশ্বনেতাদের কাছ থেকে শুভেচ্ছা বার্তা পেতে শুরু করেছেন বাইডেন ও কমলা। এরই মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট

পদে জো বাইডেন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে কমলা হ্যারিসের বিজয় উপলক্ষে অভিনন্দন জানিয়ে শুভেচ্ছা বার্তা

দিয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। বাইডেন ও কমলাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ফেসবুকে বার্তা দেন জাস্টিন ট্রুডো। জাস্টিন বলেন, আমাদের দুই দেশ ঘনিষ্ঠ বন্ধু, অংশীদার এবং মিত্র। আমাদের এমন একটি সম্পর্ক রয়েছে যা

আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে খুবই গুরুত্বপূর্ণ আমি আপনাদের (বাইডেন ও কমলা) সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে রয়েছি।

COMMENTS

[gs-fb-comments]