করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে জাপানি প্রমোদ তরীর সাড়ে ৩ হাজার যাত্রী

করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে জাপানি প্রমোদ তরীর সাড়ে ৩ হাজার যাত্রী

এপ্রিলের মধ্যে প্রত্যেক মার্কিনীদের কাছে করোনার ভ্যাকসিন পৌঁছাবে
আমার বাবা বাংলাদেশি ছিল, বের করে দিন আমাকেও : কংগ্রেস নেতা
আটকেপড়াদের ফিরিয়ে আনতে ঢাকা-আবুধাবি রুটে বিমানের বিশেষ ফ্লাইট ২৫ জুন

এই প্রিন্সেস ক্রুজ নামে তিন হাজার ৭০০ যাত্রীবাহী জাপানের একটি বিলাসবহুল প্রমোদ তরীর সব যাত্রী এখন প্রমাদ গুনছেন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হংকংয়ের ৮০ বছর বয়সী এক যাত্রীর মাধ্যমে জাহাজটিতে এ প্রাণঘাতী ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। খবর এনএইচকে ও বিবিসির।

প্রমোদ তরীটি বর্তমানে জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে নোঙর করে সবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করছে। এখন পর্যন্ত তিন হাজার ৭০০ আরোহীর মধ্যে ৩০০ আরোহীর পরীক্ষা শেষ হয়েছে।

এদের মধ্যে ১০ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এদের সবার বয়স ৫০-এর ওপরে। আক্রান্ত ১০ জনের মধ্যে দুজন জাপানি রয়েছেন।

বাকি যাত্রীদেরও পর্যায়ক্রমে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। সবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা না হওয়া পর্যন্ত জাহাজটিকে ইয়োকোহামা বন্দরেই অবস্থান করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যাত্রীদের নিরাপদ দূরত্বে কোয়ারেনটাইন করে রাখা হচ্ছে।

জাহাজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আক্রান্ত ব্যক্তির বয়স ছিল আনুমানিক ৮০ বছর। তিনি হংকং থেকে জাহাজটিতে উঠেছিলেন। গত ১০ জানুয়ারি চীন থেকে ভ্রমণ শেষে ফেরেন তিনি।

গত ১৭ জানুয়ারি তিনি জাপানের টোকিও পৌঁছেন। ১৯ জানুয়ারি থেকে কাশিসহ অন্যান্য শারীরিক সমস্যা দেখা দেয় তার। ২০ জানুয়ারি ইয়োকোহামা বন্দর থেকে জাহাজটিতে ওঠেন তিনি। এর পর ২৫ জানুয়ারি জাহাজ থেকে হংকংয়ে নামেন। ৩০ জানুয়ারি জানা যায় যে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিক থেকে চীনে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিশ্বের ২৫ দেশে ছড়িয়েছে এই প্রাণঘাতী ভাইরাস। যাতে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ হাজারের বেশি মানুষ।

এখন পর্যন্ত ৪৯০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে দুজন বাদে বাকিরা সবাই চীনে মারা গেছেন। শতাধিক পরীক্ষার ফল হাতে আসেনি। বিলাসবহুল প্রমোদ তরীতে দুই হাজার ৬৬৬ জন অতিথি এবং এক হাজার ৪৫ জন ক্রু রয়েছেন।

COMMENTS

[gs-fb-comments]