মেয়র আবদুল্লাহর নামে প্র’তারণা, ঠিকাদার গ্রে’ফ’তার

মেয়র আবদুল্লাহর নামে প্র’তারণা, ঠিকাদার গ্রে’ফ’তার

মাশরাফীরা করলে দোষ নেই, আমি করলেই দোষ: হিরো আলম
ইলিশে সয়লাব নোয়াখালীর বাজার, দামও হাতের নাগালে
২২৫ দিন পর খুলছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক

বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে ঠিকাদারি কাজের কমিশন দেয়ার কথা বলে ব্যবসায়ীক অংশীদারদের ভাগের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে আকবর উজ্জামান নামে এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার পর তাকে গ্রে’ফতা’র করেছে পুলিশ।

বুধবার (৩০ জুন) বিকেলে মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় মামলাটি করেন।

গ্রেফ’তা’র আকবর উজ্জামান নগরীর প্যারারা রোডের বাসিন্দা এবং পলি কনস্ট্রাকশন নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে আকবর উজ্জামান ও তা’র ব্যবসায়ীক অংশীদার মেহেদি হাসান সুমন এক সঙ্গে বিভিন্ন ঠিকাদারি কাজ করছিলেন। বেশি কিছু দিন ধরে ঠিকাদারি কাজের লাভের অংশ মেহেদি হাসান সুমনকে ঠিকমত দিচ্ছিলেন না আকবর উজ্জামান।

এনিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। বিষয়টি মীমাংসার জন্য গত মঙ্গলবার রাতে যুবলীগ নেতা ফজলুল হক শাহীনের ব্যক্তিগত অফিসে উভয়পক্ষকে নিয়ে শালিস বসে। এসময় আকবর উজ্জামান কিছু কাগজপত্র উপস্থাপন করেন। যাতে দেখানো হয়েছে সিটি মেয়র

সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে বড় অংকের টাকা দিয়েছেন তিনি। বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় তাকে তাৎক্ষণিক মেয়রের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কোন সদুত্তর দিতে না পারায় বুধবার (৩০ জুন)বিকেলে আকবর উজ্জামানের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

বরিশাল কোতোয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নুরুল ইসলাম জানান, বিকালে জিয়াউর রহমান জিয়া নামের এক ব্যক্তি মামলা করেন। মামলার পর আকবর উজ্জামানকে গ্রেফ’তা’র করা হয়।

COMMENTS

[gs-fb-comments]