৩১ মণ ওজনের ‘শাকিব খানের’ দাম ১৩ লাখ

৩১ মণ ওজনের ‘শাকিব খানের’ দাম ১৩ লাখ

আম’রণ অ’নশনে ধ”র্ষ’ণের শি’কার ঢাবির সেই ছা’ত্রী
ফেব্রুয়ারিতে খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা: উপাচার্যদের নিয়ে বৃহস্পতিবার ইউজিসির বৈঠক

ঈদুল আজহা সামনে রেখে টাঙ্গাইলের বাসাইলে কোরবানির জন্য ৩১ মণ ওজনের একটি ষাঁড় প্রস্তুত করেছেন এক খামারি। সাত ফুট লম্বা সাদা রঙের গরুটির বয়স দুই বছর সাত মাস। খামারি জোবায়ের ইসলাম ভালোবেসে এর নাম রেখেছেন ‘শাকিব খান’।

বাসাইলের মিরিকপুর গ্রামের তরুণ উদ্যোক্তা জোবায়ের জানান, দুই বছর সাত মাস আগে তাঁর খামারেই গরুটির জন্ম হয়। তখন আদর করে এর নাম রাখেন শাকিব খান। তখন থেকেই কোনো ক্ষতিকর ওষুধ ছাড়াই শুধু দেশীয় খাবার খাইয়ে গরুটিকে লালন-পালন করা হচ্ছে।

আকর্ষণীয় নাম আর আকারে বড় হওয়ায় আগ্রহ নিয়ে ষাঁড়টিকে দেখতে প্রতিদিনই উৎসুক মানুষজন জোবায়েরের খামারে ভিড় জমাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত ষাঁড়টির দাম হাঁকা হয়েছে ১৩ লাখ টাকা।

জোবায়ের বলেন, ‘ষাঁড়টি খুবই শান্ত প্রকৃতির। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের পরামর্শ মেনে কোনো ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার ছাড়াই শুধু দেশীয় খাবার খাইয়েই এটিকে বড় করেছি। এখন ষাঁড়টির ওজন হয়েছে প্রায় ৩১ মণ (১ টনের বেশি)। এখন ষাঁড়টির দাম চাচ্ছি ১৩ লাখ টাকা। তবে বাজারের অবস্থা বুঝে আলোচনা সাপেক্ষে দাম কিছুটা কমবেশি হতে পারে।’

 

২০১৭ সালের শেষের দিকে তিনটি গাভি দিয়ে খামারটি শুরু করেন জোবায়ের। বর্তমানে খামারে ২৫টি ষাঁড় ও গাভী রয়েছে। এর মধ্যে ছয়টি ষাঁড় এবার কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। খামারে ‘শাকিব খান’ ছাড়াও প্রায় একই ওজনের আরও

কালো রঙের আরও একটি ষাঁড় রয়েছে। সেটির নাম রাখা হয়েছে ডিপজল। ষাঁড় দুইটির জন্মের পরপরই খামারের ব্যবস্থাপক তাদের নাম রাখেন শাকিব খান ও ডিপজল। জোবায়ের ছাড়াও তাঁর বাবা শফিকুল ইসলামও খামারটি দেখাশোনা করেন।

প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা রৌশনী আকতার বলেন, ‘জোবায়েরের খামারে দেশীয় খাবার খাইয়ে ষাঁড়টিকে লালন-পালন করা হচ্ছে। আমরা “শাকিব খান” নামের ষাঁড়টিকে নিয়মিত দেখাশোনা করছি। আমাদের জানামতে, উপজেলায় এই ষাঁড়টিই এখন সবচেয়ে বড়। ’

COMMENTS

[gs-fb-comments]