আরো এগিয়ে বাইডেন,কমেছে ভোটের ব্যবধান দেখুন সর্বশেষ ফলাফল

আরো এগিয়ে বাইডেন,কমেছে ভোটের ব্যবধান দেখুন সর্বশেষ ফলাফল

সরাসরি ভ্যা;কসিন ক্রয়ের নীতিগত অনুমোদন
ভারতকে ২২ টুকরো করার হুমকি দিলেন পাক মন্ত্রী
দ. আফ্রিকার নিষে’ধাজ্ঞার আওতায় বাংলাদেশসহ ২২ দেশ

হোয়াইট হাউজের দৌড়ে ব্যাটলগ্রাউন্ড জর্জিয়া এবং পেনসিলভ্যানিয়াতে আরো এগিয়ে গেছেন ডেমোক্রেট জো বাইডেন। জর্জিয়াতে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মাত্র ৪৫০ ভোটে এগিয়ে আছেন। এ রাজ্যে ইলেকরোটাল কলেজ ভোট আছে ১৬টি।

তবে ফক্স নিউজ, এপি’র হিসাবে জো বাইডেন এখন পর্যন্ত সংগ্রহ করেছেন ২৬৪টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট। ম্যাজিক নাম্বার ২৭০ এ পৌঁছাতে তার প্রয়োজন মাত্র ৬টি ভোট। যদি তিনি জর্জিয়াকে কব্জায় নিতে পারেন তাহলে জয় তার

নিশ্চিত। তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্স, বিবিসি সহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের হিসাবে জো বাইডেন নিশ্চিত করেছেন ২৫৩টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট। ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৪ ভোট।

এ অবস্থায় জর্জিয়া এবং পেনসিলভ্যানিয়াতে সদর্পে এগিয়ে যাচ্ছেন বাইডেন। পেনসিলভ্যানিয়াতে তিনি শুক্রবার দিনের প্রথম ভাগে ব্যবধান কমিয়ে ফেলেছেন। প্রথম দিকে তাদের ভোটের ব্যবধান অনেক বেশি থাকলেও এখন তা ১৮ হাজারের মতো। যেকোনো সময় এই ভোটকে টেক্কা দিয়ে জিতে যেতে পারেন বাইডেন।

এমন অবস্থায় আবারো ‘ফলস্লি’ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভোট চুরির অভিযোগ উত্থাপন করেছেন। নেভাদায় জয়ের পথে রয়েছেন বাইডেন। সেখানে ১১ হাজার ৪৩৮ ভোটে এগিয়ে আছেন বাইডেন। ভোট গণনা করা হয়েছে শতকরা ৯৪ ভাগ।

ফলে এ রাজ্যটিও তার দখলে রয়েছে। এ অবস্থায় জো বাইডেনকে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে হলে পেনসিলভ্যানিয়াতে জিততে হবে। না হয়, জর্জিয়া, নেভাদা ও অ্যারিজোনা এই তিনটি রাজ্যের মধ্যে কমপক্ষে দুটিতে

জিততে হবে। এরই মধ্যে পেনসিলভ্যানিয়া ও জর্জিয়াতে ট্রাম্পের জয়ের পথ অনেক সংকীর্ণ হয়ে এসেছে। পেনসিলভ্যানিয়াতে এখন গণনা চলছে পোস্টাল ভোট।

নির্বাচনের আগেই মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছিল, এসব ভোটের বেশির ভাগই ডেমোক্রেটদের। ফলে পেনসিলভ্যানিয়ার দিকে সকৌতুহলে তাকিয়ে আছেন জো বাইডেন। তার সামনে আশার আলো জ্বালিয়ে দিয়েছে জর্জিয়া। এখানে মাত্র ৪৫০

ভোটে এখন পিছিয়ে আছেন বাইডেন। এখানে শতকরা ৯৯ ভাগ ভোট গণনা হয়ে গেছে। ফলে পেনসিলভ্যানিয়ার ২০টি এবং জর্জিয়ার ১৬টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট জিতলেই চার বছরের জন্য হোয়াইট হাউজের লাইসেন্স তার জন্য পাকা।

শুক্রবার সকালের দিকে অ্যারিজোনাতে জো বাইডেনের সঙ্গে ট্রাম্পের ব্যবধান কমেছে। সেখানে ট্রাম্পের চেয়ে জো বাইডেন এগিয়ে আছেন প্রায় ৪৭ হাজার ভোটে। ভোট গণনা হয়েছে শতকরা ৯০ ভাগ। অন্যদিকে নেভাদায় বাইডেন

এগিয়ে আছেন প্রায় ১২ হাজার ভোটে। এ অবস্থায় পুরো যুক্তরাষ্ট্র যেন দম বন্ধ করে আছে গত তিনটি দিন। জর্জিয়া ও পেনসিলভ্যানিয়ার কর্মকর্তারা আশার বাণী শুনিয়েছেন। তারা বলেছেন শুক্রবারের মধ্যে তাদের গণনা শেষ হয়ে যাবে। অন্যদিকে ভোট গণনায় আরো কয়েকদিন সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছে অ্যারিজোনা ও নেভাদার কর্মকর্তারা।

পোস্টাল ভোট গণনায় ধীর গতিতে জালিয়াতির অভিযোগ তুলেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে এবার যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রেকর্ড পরিমাণ মানুষ আগাম ও পোস্টাল ভোট দিয়েছেন। সেই ভোট সেন্টারে পৌঁছাতে সময় লেগেছে। ফলে গণনা করতে বিলম্ব হচ্ছে। এসব ভোট যতই গণনা হচ্ছে ততই জর্জিয়া ও

পেনসিলভ্যানিয়ার মতো রাজ্যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শুরুতে যে শক্তিশালী অবস্থায় এগিয়ে ছিলেন, তাতে ক্ষয় ধরেছে। বিভিন্ন রাজ্য নির্বাচনের পরে ভোট গণনায় নির্বাচনের আগে থেকেই সুপ্রিম কোর্টের কাছ থেকে আগাম সময় চেয়ে নিয়েছে। তবে

শুক্রবার দিনের শুরুতে বেশ কিছু টুইট করেছেন ট্রাম্প। এতে তার অভিযোগের অন্ত নেই। তিনি দাবি করেছেন- বৈধ ভোটে আমি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছি খুব সহজে। তবে তার এ পোস্টকে ‘ফ্লাগড’ করেছে টুইটার কর্তৃপক্ষ। তারা মনে করছে, এর মধ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

COMMENTS

[gs-fb-comments]