ফেসবুকে অসহায় বৃদ্ধা জরিনাকে নিয়ে স্ট্যাটাস, পেলেন নতুন ঘর

ফেসবুকে অসহায় বৃদ্ধা জরিনাকে নিয়ে স্ট্যাটাস, পেলেন নতুন ঘর

১৩ জেলার পুলিশ সুপারসহ ২৫ কর্মকর্তা বদলি
ইতালিতে এক সপ্তাহে বাংলাদেশিসহ আক্রান্ত লাখের বেশি
অনার্স চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষার সংশোধিত সময়সূচি প্রকাশ

ভাঙা বেড়ার মধ্য দিয়ে কনকনে ঠাণ্ডা বাতাস আর শীতে কাঁপতেন ৯১ বছর বয়সি বৃদ্ধা জরিনা বেওয়া। স্বামী মারা গেছে অনেক আগেই। একমাত্র মেয়ে সন্তান ছিল সেও মারা গেছে বেশ কয়েক বছর আগে। অসহায়ভাবে একাকী মানবেতর জীবনযাপন করেন জরিনা বেওয়া।

স্থানীয় যুবক রাশেদুল হাসান তার ফেসবুকে এমন একটি স্ট্যাটাস দিলে বিষয়টি মামুন বিশ্বাস নামে এক ব্যক্তির নজরে আসে। পরে মামুন ছুটে যান সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার ধোপাকান্দি গ্রামের বানু আকন্দের স্ত্রী জরিনা বেওয়াকে দেখতে।

জরিনার অবস্থার কথা জানিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সহায়তার আবেদন করেন মামুন বিশ্বাস। সেই ফেসবুকের স্ট্যাটাস দেখে বৃদ্ধার সহায়তায় এগিয়ে আসেন মামুনের ফেসবুক বন্ধুরা। অর্থ সংগ্রহ হয় ৬২ হাজার ৫০০ টাকা। মামুন বিশ্বাস নিজ উদ্যোগে রাশেদুলের সাহায্য নিয়ে বৃদ্ধার জন্য একটি ঘর তৈরি করেন। ঘরের নির্মাণ কাজসহ সবকিছুর কাজ শেষ করে রোববার জরিনা বেওয়াকে নতুন ঘরে তুলে দেন এবং ১০ হাজার ৩০ টাকা তুলে দেন তার হাতে।

এ সময় কামারখন্দ থানার ওসি কেএম রাকিবুল হুদা, মামুন বিশ্বাস, রাশেদুল হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সব কিছু

পেয়ে খুশি বৃদ্ধা জরিনা। তিনি বলেন, বাবা এখন আর ঘরের মধ্যে ঠাণ্ডা বাতাস ঢোকে না, লেপ-তোশক এগুলো গায়ে দিয়ে শান্তিতে ঘুমাই। আগে অন্যের বাড়ি থেকে পানি আনতাম, তোমরা টিউবওয়েল দেয়ায় এখন আমার আর পানির কষ্ট নেই। আমি সবার জন্য দোয়া করি বাবা।

মামুন বিশ্বাস বলেন, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারলে ভালো লাগে, আর এই মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানো আমাদের সবার দায়িত্ব।

আজকে নতুন ঘর, কাপড়, শীতের পোশাক, লেপ-তোশক, খাদ্যসামগ্রীসহ নগদ টাকা তুলে দিলাম জরিনা খালাকে অনেক ভালো লাগছে। একজন অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পেরে আমি অনেক খুশি। আমি আমার অবস্থান থেকে শুধুমাত্র চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

COMMENTS

[gs-fb-comments]