মাত্র ৫৫ মিনিটেই ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম!

মাত্র ৫৫ মিনিটেই ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম!

চু’রির পর হ’ত্যা, সেই শি’শুর বাবাসহ আ’টক ৩
মহাকাশে আজ দেখা মিলবে উল্কা ঝড়ের
কারাগারে পড়াশোনা করতে চান মৃ’ত্যুদণ্ড’প্রাপ্ত মিন্নি

স্বপ্নের বুলেট ট্রেন বাস্তবায়নে আরও এক ধাপ এগোল বাংলাদেশ রেলওয়ে। প্রকল্পের জন্য অর্থ জোগাড় ও নি’র্মাণে সহায়তায় রাজি চীনের দুটি প্রতিষ্ঠান। প্রকল্পের এক লাখ হাজার কোটি টাকার ঋণ পরিশোধে বাংলাদেশ সময় পাবে ২০ বছর। চীনের প্রস্তাব বিবেচনা করছে রেলওয়ে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছর শুরু হবে ঢাকা-চট্টগ্রাম বুলেট ট্রেনের চূড়ান্ত কার্যক্রম।বুলেট ট্রেন। মাত্র ৫৫ মিনিটে রাজধানী থেকে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে পৌঁছে যাবে।

অনেকটা অবিশ্বা’স্য হলেও সে পথেই প’রিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সমীক্ষা অনুযায়ী ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ২২৭ কিলোমিটার উড়াল রেলপথ নি’র্মাণ করা হবে। থাকবে ৬টি অত্যাধুনিক রেলস্টেশন। পথের পুরোটাই হবে সংক্রিয় সিগনাল ব্যব’স্থা সম্পন্ন।

ট্রেনের গতি হবে ঘণ্টায় ৩০০ কিলোমিটার মিটার। রূপকথার মতো এই প্রকল্পের সম্ভাব্য ব্যয় ধ’রা হয়েছে এক লাখ হাজার কোটি টাকা। এ বিপুল পরিমাণ অর্থের উৎস খুঁজছিল রেলওয়ে। সেই অর্থের জোগান ও নি’র্মাণে সহায়তার হাত বাড়িয়েছে চায়না রেলওয়ে কন্সট্রাকশন করপোরেশন ও চায়না সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কন্সট্রাকশন করপোরেশন নামে দুটি প্রতিষ্ঠান।যারা যৌথভাবে একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করে প্রয়োজনীয় ঋণের সংস্থান ও নি’র্মাণের দায়িত্ব নেবে।

পরে সেই ঋণ পরিশোধ করবে রেলওয়ে। প্রতিষ্ঠানটি ৫ বছর রেলপথটি পরিচালনা করে বাংলাদেশকে হস্তান্তর করবে। এ সময় অর্জিত অর্থ জমা হবে রেলের কোষাগারে। ঋণ শোধের জন্য বাংলাদেশ সময় পাবে ২০ বছর। চীনের প্রস্তাবটি মতামতের জন্য সরকারের অর্থনৈতিক স’স্পর্ক বিভাগে পা’ঠানো হবে জা’নিয়ে প্রকল্প পরিচালক কামরুল আহসান জা’নান,

এ বছরই চীনের স’ঙ্গে কাজ শুরু ক’রতে চায় রেলপথ মন্ত্রণালয়। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছরই শুরু হবে দ্রুতগতির রেলপথ নি’র্মাণের চূড়ান্ত কার্যক্রম। তিনি বলেন, চায়নার দুটি কোম্পানি থাকবে আর রেলওয়ের সহযোগিতা থাকবে। তারা ঋণ ম্যানেজ করে দেবে। প্রতিদিন এ পথে ৫০ হাজার যাত্রী পরিবহনের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। পরে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত এ রেলপথ বর্ধিত করা হবে।

COMMENTS

[gs-fb-comments]