জমজ বাছুর জন্ম দেয়ার প্রযুক্তি বাংলাদেশে

জমজ বাছুর জন্ম দেয়ার প্রযুক্তি বাংলাদেশে

৩ দিন পর থেকে তাপমাত্রা কমার আভাস
নিজের ছেলেকে নিয়ে দুষ্টুমিতে মেতে উঠলেন অপু
ব্যক্তির নাম বললেই ফ্ল্যাক্সিলোড চলে যায় মোবাইলে!

গাভি থেকে বছরে একটি বাছুরের বদলে দুটি বাছুর জন্মানোর জন্য আবিষ্কার করা প্রযুক্তির সাফল্যের দাবি করেছেন বাংলাদেশ প্রাণী সম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীরা। এতে নিঃসন্দেহে দেশের গরু সম্পদের ওপর ব্যাপক ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আশা করছেন তারা।

বিবিসির একটি প্রতিবেদন অনুসারে, বাংলাদেশ প্রাণী সম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউটের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. গৌতম কুমার দেব বলেন, সাধারণত একটি গাভি প্রতিবছর একটি বাছুর প্রসব করে। তবে বছরে দুটি বাছুর জন্মানোর প্রযুক্তি আবিষ্কার

করার পর প্রাথমিক সাফল্য মিলেছে। আমরা এটি মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের জন্য কাজ করছি। বাংলাদেশে এ প্রযুক্তিটি নতুন। মাঠ পর্যায়ে সফল হলে দেশে গরুর উৎপাদন বাড়বে। দেশীয় কৃষক ও খামারিরাও লাভবান হবেন।

নতুন প্রযুক্তির ব্যাপারে ড. গৌতম কুমার দেব বলেন, প্রযুক্তিটির নাম ইনভিট্রো অ্যামব্রায়ো প্রডাকশন বা আইভিপি। তবে এটিকে কেউ কেউ আইভিএ-ও বলে থাকেন। এতে বেশি দুধ প্রদানকারী গাভী থেকে ডিম্বাণু সংগ্রহ করে গবেষণাগারে

নেয়া হয়। সেখানে ডিম্বাণুকে পরিপক্ব করে ফার্টিলাইজ করানো হয়। ফলে জন্ম নেয়া ভ্রূণ গবেষণাগার থেকে দুটি করে ভ্রূণ ধাত্রী গাভীতে সংস্থাপন করা হয়। এরপর ওই গাভীটি গর্ভধারণ করলেই দুটি করে বাচ্চা প্রসব করবে।

তিনি আরো বলেন, গবেষণার অংশ হিসেবে পরীক্ষাগুলোতে সফলতা এসেছে। এখন মাঠ পর্যায়ে প্রয়োগের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে সফল হওয়ায় আমরা এখন ভালো মানের গাভি বাছাই করছি। এসব লাইভ গাভি থেকে ডিম্বাণু

কালেকশনের কাজ করা হবে। মাঠ পর্যায়ে এটি সফল হবে বলে আমরা আশা করছি। পরে তা আমরা ছড়িয়ে দিতে পারবো। একটি সুস্থ ও ভালো মানের গাভীর ডিম্বাণু দিয়ে অনেকগুলো গাভীর গর্ভধারণ করানো সম্ভব হবে।

দেশে গবাদিপশুর কৃত্রিম প্রজনন নতুন কিছু নয়। কৃত্রিম প্রজনন কাজে সহায়তার জন্য দেশের প্রতি উপজেলায় একজন করে পশু চিকিৎসক নিয়োগ দিয়েছে সরকার। কিন্তু এ পদ্ধতিতে একটি গাভী থেকে বছরে একটি বাছুরই পাওয়া সম্ভব হয়। তবে কয়েক বছর আগে থেকেই মূলত জোড়া বাছুর উৎপাদনের চিন্তাটির সফলতা গবেষণাগার থেকে আসতে থাকে।

গত প্রায় চার বছর ধরে পরীক্ষার আওতায় ধারাবাহিকভাবে একটি গাভী থেকে জোড়া বাছুর জন্ম নেয়ার পর এখন এটি মাঠ পর্যায়ে নেয়া সম্ভব বলে মনে করছেন গবেষকরা।

এদিকে সরকারি একটি পোর্টালে ঝিনাইদহের পশু চিকিৎসক মো. নূর আলী লিখেন, সাধারণত ষাঁড়ের বীজ সংগ্রহ করে নির্দিষ্ট কয়েকটি পদ্ধতির মাধ্যমে গাভীর প্রজনন অঙ্গে স্থাপন করাকে কৃত্রিম প্রজনন বলে।

তার দেয়া তথ্যানুযায়ী, একটি ষাঁড়ের বীজ থেকে প্রতি বছর ৬০ থেকে ৮০টি গাভির প্রজনন করানো সম্ভব। কিন্তু কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে ৫,০০০ থেকে ১০,০০০ গাভি প্রজনন করানো যায়। স্বাভাবিকভাবে একটি ষাঁড় সর্বমোট ৭০০ থেকে ৯০০টি বাছুর প্রসবে ভূমিকা রাখতে পারে। ফলে এখন যদি গবেষকরা একটির বদলে দুটি বাছুর জন্ম দেয়ার কার্যক্রম মাঠ পর্যায়ে প্রয়োগে সফল হন তাহলে গরু উৎপাদন ব্যাপকভাবে বাড়ানো যাবে।

বাংলাদেশের জাতীয় জ্ঞানকোষ বাংলাপিডিয়ায় বলা হয়েছে, দেশে গরুর সংখ্যা প্রায় আড়াই কোটি। গত বছরের শুরুতেই

গবাদিপশুর বৈশ্বিক সুচকে বাংলাদেশ স্বয়ংসম্পূর্ণের খবর প্রকাশ হয়। সেই খবরে গরু, মহিষ, ভেড়া ও ছাগল-সব মিলিয়ে গবাদিপশু উৎপাদন বাংলাদেশ বিশ্বের ১২ তম অবস্থানে ছিল।

বিজ্ঞানীদের আশা, বাংলাদেশে ভালো মানের গাভীর দুটি করে বাচ্চার প্রকল্প মাঠপর্যায়ে সফল হলে সেটি গবাদিপশু ও গণমানুষের জীবনমানের আরে উন্নতি সম্ভব হবে।

COMMENTS

[gs-fb-comments]