২৭ বছর আগের ভ্রূণ থেকে শিশুর জন্ম

২৭ বছর আগের ভ্রূণ থেকে শিশুর জন্ম

দিহানের প্রকৃত বয়স কত, ?
শেরপুরে মৃ,ত্যুদ,ণ্ড,প্রাপ্ত পলাতক ২ আ,সামি গ্রেফতার
মৃ’ত্যুর ১২ বছরেও পেনশন পায়নি এক পুলিশ কর্মকর্তার পরিবার

মলি গিবসন। জন্ম এ বছরের অক্টোবরে। তবে ১৯৯২ সালের অক্টোবর থেকে তার ভ্রূণ হিমায়িত ছিল। ২৭ বছর ধরে

এভাবেই ছিল মলি। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ভ্রূণটিকে দত্তক নেন টিনা ও বেন গিবসন।

মলির জন্মের পর টিনা গিবসন সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে বলেন, আমরা প্রচণ্ড খুশি। আবেগে আমার কান্না পাচ্ছে।

তিনি বলেন, পাঁচ বছর আগে যদি আপনি বলতেন আমার একটা না দুটি মেয়ে হবে, আমি আপনাকে পাগল ভাবতাম। দীর্ঘদিন ধরে হিমায়িত থেকে জন্ম নেয়া শিশুদের মধ্যে মলি নতুন রেকর্ড গড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বড় বোন এমার রেকর্ডও ভেঙেছে সে।

১৯৯২ সালে মলি ও এমার ভ্রূণ দান করা হয়। এমার ২৪ বছরের ভ্রূণ ইতিহাসের সবচেয়ে বয়স্ক ভ্রূণ ছিল।

সন্তানের জন্য প্রার্থনা ও নিদ্রাহীন রাতের ইতি টেনে প্রথম ভ্রূণ দত্তক নেয়ার পর ২০১৭ সালে এমার জন্ম দেন টিনা।

গিবসন দম্পতি গত প্রায় পাঁচ বছর ধরে বন্ধ্যাত্বের সঙ্গে লড়াই করছিলেন। স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমে ভ্রুণ দত্তক নেয়া নিয়ে এক দিন একটি প্রতিবেদন দেখেন টিনার মা-বাবা।

২৯ বছর বয়সী টিনা বলেন, এ কারণেই আমরা আমাদের গল্প সবাইকে জানাচ্ছি। যদি আমার মা-বাবা প্রতিবেদনটি না দেখতেন, তাহলে আমরা আজকে এ জায়গায় আসতাম না।

প্রাথমিক স্কুল শিক্ষিকা টিনা ও তার ৩৬ বছর বয়সী সাইবার নিরাপত্তা বিশ্লেষক স্বামী বেন যুক্তরাষ্ট্রের টেনেসি অঙ্গরাজ্যের ন্যাশনাল এমব্রায়ো ডোনেশন সেন্টারের (এনইডিসি) সঙ্গে যুক্ত। এটি অঙ্গরাজ্যটির নক্সভিল শহরে অবস্থিত খ্রিষ্টানদের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান।

ভিট্রো ফার্টিলাইজেশনে থাকা রোগী যারা ভ্রুণ ব্যবহারের চেয়ে দান করতে ইচ্ছুক, সেসব ভ্রূণ হিমায়িত করে এনইডিসি।

এনইডিসির পক্ষ থেকে বলা হয়, গিবসনের মতো দম্পতিরা সেসব অব্যবহৃত ভ্রূণ দত্তক নেন এবং তাদের সঙ্গে জিনগতভাবে সম্পর্কিত না এমন সন্তানের জন্ম দেন। যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ১০ লাখ হিমায়িত মানব ভ্রূণ এ মুহূর্তে সংরক্ষিত আছে।

এনইডিসির মার্কেটিং ও ডেভেলপমেন্ট বিভাগের পরিচালক মার্ক মেলিনগার জানান, দম্পতিদের মধ্যে বন্ধ্যাত্বের অভিজ্ঞতা সাধারণ একটি ঘটনা।

তিনি বলেন, সম্ভবত ৯৫ শতাংশ দম্পতি কোনো না কোনোভাবে বন্ধ্যাত্বের মধ্য দিয়ে যান। তাদের পরিবার বৃদ্ধিতে সহায়তা করি আমরা। এ কাজ করতে পেরে নিজেদের সম্মানিত ও সুবিধাপ্রাপ্ত মনে হয়।

COMMENTS

[gs-fb-comments]