২ দিন রাস্তায় পড়েছিলেন বৃদ্ধা, এগিয়ে এলেন ইউএনও

২ দিন রাস্তায় পড়েছিলেন বৃদ্ধা, এগিয়ে এলেন ইউএনও

অবশেষে আবারো চাকরি ফিরে পেলেন সেই মুসলিম পুলিশ কর্মকর্তা
ধরাশয়ী ফ্রান্সের সেই ওয়েবসাইট বাংলাদেশিদের দেড় ঘণ্টার হামলায়
ট্রা;ম্পকে অক্সি;জেন দেয়া হয়েছিল: গো;পন তথ্য জানালেন চিকি;ৎসক

দুই দিন ধরে রাস্তায় পড়ে থাকা মানসিক প্রতিবন্ধী এক বৃদ্ধার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন শরীয়তপুর সদরের ইউএনও মনদীপ ঘরাই।

বুধবার রাতে শরীয়তপুর সদর উপজেলার দেওভোগ এলাকা থেকে ওই বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেন ইউএনও। বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্থানীয়রা জানায়, দেওভোগ এলাকার পালং-বুড়িরহাট সড়কে সোমবার থেকে মানসিক প্রতিবন্ধী ওই বৃদ্ধা পড়েছিলেন। করোনার আতঙ্কে কেউ তাকে উদ্ধার করেনি। বুধবার সন্ধ্যায় পালং-বুড়িরহাট সড়ক দিয়ে মোটরসাইকেল চালিয়ে ভেদরগঞ্জের বাসিন্দা শাহীন মিয়া নামে এক তরুণ যাচ্ছিলেন। তিনি ওই বৃদ্ধাকে দেখে বিষয়টি মুঠোফোনে শরীয়তপুরের ডিসি পারভেজ হাসানকে জানান।

শাহীন মিয়া বলেন, পালং-বুড়িরহাট সড়ক দিয়ে যাওয়ার পথে ওই বৃদ্ধাকে পড়ে থাকতে দেখি। তখন তিনি অচেতন ছিলেন। বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে ডিসিকে জানাই।

কিছুক্ষণ পর ইউএনও আমাকে ফোন করে সেখানে অপেক্ষা করতে বলেন। এর পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ইউএনও ওই বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে গাড়িতে তুলে হাসপাতালে নিয়ে যান।

তিনি বলেন, ওই বৃদ্ধাকে উদ্ধারের সময় অনেক মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। তার শরীর দিয়ে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছিল, করোনার আতঙ্কে কেউ তখনো সহায়তা করছিলেন না। তখন ইউএনও মনদীপ ঘরাই তাকে কোলে তুলে গাড়িতে ওঠান। যা অনেক মানবিক ঘটনা। সচরাচর প্রশাসনের কর্মকর্তারা এ কাজগুলো করেন না।

ইউএনও মনদীপ ঘরাই বলেন, বিষয়টি শুনে হতবাক হলাম, দুই দিন সড়কে পড়ে থাকার পরও কেউ তাকে সাহায্য করেননি। ওই নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়া হয়েছে। আগামী রোববার তার পুনর্বাসনের প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

এদিকে, অসুস্থ ওই প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা নিজের ঠিকানা বলতে পারছেন না। তাকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের নারী ওয়ার্ডে

চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তার চিকিৎসা দিচ্ছেন ডা. শফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ওই বৃদ্ধার শরীরের বিভিন্ন স্থানের মাংসে পচন ধরেছে। তার শরীর অনেক দুর্বল।

COMMENTS

[gs-fb-comments]